পুলিশের মহাপরিদর্শকের (আইজিপি) নাম ও পদবি ব্যবহার করে ই-মেইল ও সোশ্যাল মিডিয়ায় অ্যাকাউন্ট খুলে প্রতারণার অভিযোগে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। তাঁর নাম আরিফ মাইনুদ্দিন (৪৩)। গত সোমবার রাতে রাজধানীর হাজারীবাগ এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়।

আরিফের বিরুদ্ধে হাজারীবাগ থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) সিআইডি কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে সিআইডির অতিরিক্ত উপমহাপরিদর্শক ইমাম হোসেন বলেন, আটক আরিফ ম্যারেজ ডট কম নামের একটি কম্পানির আড়ালে পুলিশের মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদের নাম, ছবি ও পদবি ব্যবহার করে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, ই-মেইল, ট্রুকলার, আইকন, হোয়াটসঅ্যাপে অ্যাকাউন্ট খুলে প্রতারণা চালিয়ে আসছিলেন।

তিনি বিভিন্ন দপ্তর, বাণিজ্যিক ব্যাংকের দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের ফোন করে নিজেকে আইজিপি হিসেবে পরিচয় দিয়ে এই অবৈধ সুবিধা নেওয়ার চেষ্টা করতেন। তাঁর কাছ থেকে চারটি মোবাইল ফোন ও পাঁচটি সিমকার্ড জব্দ করা হয়।

ইমাম হোসেন জানান, গ্রেপ্তার আরিফ আইজিপি পরিচয় দিয়ে গত ২৬ আগস্ট তিনটি বেসরকারি ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে ফোন করেন। এ ছাড়া ২৯ আগস্ট একটি ব্যাংকের এক কর্মকর্তাকে ফোন করে ‘ভয় দেখিয়ে বিভিন্ন অনৈতিক আর্থিক সুবিধা’ দাবি করেন।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, আরিফ মাইনুদ্দিনের কাছ থেকে জব্দ করা একটি অ্যানড্রয়েড মোবাইলে জিমেইল অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছিল বেনজীর আহমেদ নাম দিয়ে। এ ছাড়া মোবাইল ফোনের অন্যান্য অ্যাপে আইজিপির নামে প্রোফাইল খোলেন তিনি। ফলে ওই মোবাইল থেকে তিনি যখন অন্য কোনো মোবাইলে ফোন করতেন, তখন অন্যপ্রান্তে বা অন্যান্য অ্যাপে আইজিপির নাম, ছবি ও পদবি ভেসে উঠত।

সিআইডি কর্মকর্তা জানান, আটক আরিফ প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে অপরাধ স্বীকার করে জানিয়েছেন, তিনি একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কম্পিউটার সায়েন্সে মাস্টার্স শেষ করে একটি বেসরকারি ব্যাংকে কিছুদিন চাকরি করেছিলন। পরে তাঁর চাকরি চলে গেলে অর্থ উপার্জনের আশায় এ ধরনের প্রতারণামূলক কাজে যুক্ত হন। তবে প্রতারণার মাধ্যমে এখন পর্যন্ত তিনি কারও টাকা-পয়সা হাতিয়ে নিতে পেরেছেন কি না কিংবা পারলেও সেই টাকার পরিমাণ কত তা জানা যায়নি।